7.7 C
Düsseldorf
- Advertisement -spot_img

AUTHOR NAME

উপমন্যু রায়

2 পোস্ট
0 মন্তব্যসমূহ
পেশায় সাংবাদিক। নেশা সাহিত্য। বর্তমানে একটি দৈনিক পত্রিকা‌য় কর্মরত। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম কম এবং বাংলাভাষা ও সাহিত্যে এম এ। তবে স্বপ্ন ও মননে রয়েছে কথাসাহিত্য। মানসিক দিক থেকে নিঃসঙ্গতা–প্রিয়। প্রিয় বিষয় পরাবাস্তব। প্যারাসাইকোলজি ও অ্যানসিয়েন্ট এলিয়েন নিয়ে আগ্রহ অসম্ভব। তাই পৃথিবী ও পৃথিবীর বাইরের জগৎ সম্পর্কে নিজস্ব ধারণাও রয়েছে। সেই ধারণার সঙ্গে আমাদের চোখের সামনের বাস্তবতা মিলিয়ে সৃষ্টি করেন নতুন ভাবনা, যা তঁার লেখায় দেখা যায়। এ বিষয়ে তঁার উল্লেখযোগ্য বই (‌১)‌ ‘অশরীরী আতঙ্ক/ পৃথিবীর রহস্যময় ঠিকানা’, (‌২)‌ গভীর রাতের আতঙ্ক (‌পাঁচটি অতিপ্রাকৃত উপন্যাসের সংকলন)‌, এবং (‌৩)‌ প্রেত রহস্য / মোটেও কল্পকাহিনি নয়। কল্পনা ও আবেগকে অসম্ভব গুরুত্ব দেন। তঁার কথায়, ‘‘যতদূর পারো, কল্পনা করো। কারণ, বিশ্বসংসারে অবাস্তব বলে কিছু হয় না।’’ আর আবেগ সম্পর্কে তঁার বক্তব্য, ‘‘আবেগ ফুরিয়ে গেলে বেঁচে থাকাটাই অর্থহীন হয়ে যায়।’’ উল্লেখযোগ্য উপন্যাস ‘‌নারী, তোমাকে’‌, ‘তার পর বৃষ্টির শব্দ’, ‘আমার হাত ধরে তুমি নিয়ে চলো সখা’, ‘তার পর অন্ধকার আরও’, ‘অন্ধকারের পিছনে’, ‘স্বপ্ন, শূন্যতা এবং’, ‘মুখোমুখি মৃত্যু তখন’, ‘তারা আসছে’ প্রভৃতি। উল্লেখযোগ্য গল্প রাতের সমুদ্র, সমুদ্র উত্তাল, সমুদ্রের দিনরাত, সমুদ্রের শূন্য শহর, সমুদ্রে অদ্রিজা, বিকেলের মৃত্যু প্রভৃতি।

ঋজুদা ছিলেন, ঋজুদা আছেন, ঋজুদা থাকবেনও

অরণ্য বা প্রকৃতি প্রেমিক সাহিত্যিকের অভাব নেই বাংলা সাহিত্যে। তেমনই অরণ্যকে পটভূমি করে উপন্যাসও তো কম লেখা হয়নি বাংলায়। বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘চাঁদের পাহাড়’ বা...

বাঙালি কি সত্যিই শিল্পবিমুখ? পরিশ্রম করতে ভয় পায়?

বাঙালি আত্মঘাতী জাতি। বলেছিলেন নীরদ সি চৌধুরী। আর সে কথা নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি। অনেকে যেমন কথাটার সঙ্গে সহমত হয়েছিলেন, তেমনই বিরোধিতাও কম হয়নি।...

Latest news

- Advertisement -spot_img