20.3 C
Düsseldorf

হাসি নাকি হৃদপিণ্ডের টনিক

Must read

গোলজার হোসাইন খান
গোলজার হোসাইন খান
আমি সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর একজন অবসরপ্রাপ্ত এসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার।অতি সাধারণ মানুষ। কোন উচ্চাভিলাষ নেই। সাংসারিক বোধবুদ্ধি শূন্যের কোঠায়। হেরে যাওয়া মানুষের পাশে থাকি।এড়িয়ে চলি স্বার্থপরতা।বিনম্র শ্রদ্ধায় নত হই সৃষ্টিশীল-পরিশ্রমী মানুষের প্রতি আর ভালবাসি আমার পেশাকে।

এক বৃদ্ধ ট্রেনে উঠেছে।কামরায় সে
একাই ছিলো। হঠাৎ ১২ জন যুবক চলন্ত ট্রেনের
বগিতে উঠেই চিৎকার করে গান শুরু করে দিল।
ছুরি দিয়ে ফল কেটে খাচ্ছিলো ।
হঠাৎ একটি যুবক বলে উঠলোঃ “চল
আমরা চেইনটা টেনে ট্রেনটাকে
থামিয়ে দেই।”
২য় যুবকঃ “না দোস্ত, লেখা আছে-অকারনে চেইন টানলে পাঁচ শত টাকা জরিমানা অথবা ছয় মাসের জেল।”
১ম যুবকঃ ” চল আমরা একশো টাকা করে চাঁদা তুলি।বারোশো টাকা হবে বাকী সাত শো টাকা দিয়ে লাঞ্চ করবো। Let’s fun friends”
বারোশো টাকা তুলে ১ম যুবকের পকেটে রাখলো।
৩য় যুবকঃ “দোস্ত, আমরা চেইন টেনে ঐ বুইড়াটাকে দেখিয়ে দিলে পাঁচ শো টাকাও বাঁচলো মজাও হলো।আমরা ১২ জন সাক্ষী দিলে টিটি মেনে যাবে।”
বৃদ্ধ হাত জোড় করে বললোঃ “বাবা,
তোমরা আমার ছেলের বয়সী।কেনো আমাকে বিপদের মধ্যে ফেলবে।”
যুবকগুলো বৃদ্ধের অনুরোধ অবজ্ঞা করে চেইনটা টান দিতেই টিটি চলে এসে জিজ্ঞাসা
করলোঃ “কে চেইন টেনেছে?”
যুবকগুলো বৃদ্ধকে দেখিয়ে বললোঃ “ঐ চাচা মিয়া টেনেছে।”
টিটি বৃদ্ধকে বললোঃ “অকারনে চেইন টানলে
পাঁচ শত টাকা জরিমানা অথবা ছয় মাস জেল।”
যুবকগুলো চিৎকার করে বললোঃ “স্যার,
বুইড়া অকারনেই টেনেছে। হো হো হো হো………”
বৃদ্ধ একটু দাঁড়িয়ে বললোঃ “টিটি সাহেব
আমি বিপদে পড়েই চেইন টেনেছি।”
টিটি বললোঃ “কি বিপদ?”
বৃদ্ধ বললোঃ “ঐ যুবকগুলো আমার গলায় ছুরি ধরে বারো শো টাকা ছিনতাই করেছে।”
টিটি বললোঃ “কি সর্বনাশ?”
বৃদ্ধ বললোঃ “দেখুন ঐ যুবকটির পকেটে টাকা আর ঐ ব্যাগে ছুরি।” তল্লাশি করে সব মিলে গেল।
টিটি পুলিশ কল করে বৃদ্ধকে বারো’শ টাকা ফেরত দিয়ে সবাইকে গ্রেফতার
করে নিয়ে যাচ্ছিলো।
তখন বৃদ্ধ তার পাকা চুল-দাঁড়ি দেখিয়ে
যুবকগুলোকে বললোঃ
“বাবারা এইগুলো রোদে পাকে নাই”

- Advertisement -spot_img

More articles

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ আপডেট