14.7 C
Düsseldorf

হাঙ্গেরির খেলায় মিউনিখ স্টেডিয়ামে রংধনু আলো জ্বালানোর দাবী

Must read

হাঙ্গেরির পার্লামেন্ট ‘এলজিবিটি+’ বিরোধী আইন পাসের প্রতিবাদে ইউরো কাপে হাঙ্গেরি-জার্মানি ম্যাচের দিন মিউনিখ স্টেডিয়ামে রংধনু আলো জ্বালানোর দাবি উঠেছে৷ মিউনিখ সিটি কাউন্সিল এর পক্ষে জোরালো অবস্থান নিয়েছে৷

মিউনিখের আলিয়াঞ্জ আরেনা স্টেডিয়ামে বুধবার এফ গ্রুপের লড়াইয়ে জার্মানির মুখোমুখি হবে হাঙ্গেরি৷ স্টেডিয়ামটির অন্যতম আকর্ষণ এর বহিরাবরণ, যেখানে ইচ্ছামাফিক আলো জ্বালানোর সুযোগ আছে৷ বুধবার সেটি ‘এলজিবিটি+’ আন্দোলনের প্রতীক রংধনুর সাত রঙে রাঙানোর দাবি উঠেছে৷
জার্মানির বাভারিয়া রাজ্যের রাজধানী মিউনিখের মেয়র ডিটার রাইটারকে এজন্য সিটি কাউন্সিলের পক্ষে থেকে একটি চিঠি দেয়া হয়েছে৷ এতে বলা হয়েছে, ‘‘জার্মানি ও হাঙ্গেরির মধ্যকার ম্যাচের দিন হাঙ্গেরির এলজিবিটি কমিউনিটির কাছে সহমর্মিতার বার্তা পাঠাতে চায় কাউন্সিল, যারা হাঙ্গেরি সরকারের সাম্প্রতিক পাস করা আইনের কারণে ভুক্তভোগী হচ্ছেন৷’’

প্রুশিয়ান সাম্রাজ্য এবং পরে নাৎসি জার্মানিতে সমকামীরা ব্যাপক নির্যাতনের স্বীকার হতেন৷ সমকামিতার অভিযোগে ছিল কারাদণ্ডের বিধান৷ এমনকি গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এবং আধুনিক জার্মানি স্থাপিত হওয়ার পরও সমকামীদের অধিকার নিশ্চিত হয়নি৷ তবে কয়েক দশকে সে অবস্থানের দ্রুতই পরিবর্তন হয়েছে৷ ১৯৬৯ সালে সমকামীদের শাস্তি দেয়ার বিধান বাতিল হলেও ২০১৭ সালে এসে তারা বিয়ের অধিকার পান৷

জার্মান পার্লামেন্টে ভোটের মাধ্যমে সমকামীদের বিয়ের অধিকারের পক্ষে দাঁড়ান রাজনীতিবিদরা৷ কিন্তু তখনো অনেক পার্লামেন্ট সদস্য এর বিরুদ্ধে ছিলেন৷ ক্ষমতায় থাকা দল সিডিইউ-র ৩০৯ সদস্যের মধ্যে ২২৫ জনই এর বিরুদ্ধে ভোট দেন৷ খোদ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল ছিলেন বিরোধিতাকারীদের একজন৷ তবে পরবর্তী ভোটে রাজনীতিবিদরা যাতে দলের মতাদর্শ মেনে ভোট না দিয়ে নিজের সিদ্ধান্তে ভোট দেন, সে আহ্বান জানিয়েছিলেন ম্যার্কেল৷

সমকামীদের অধিকারের আন্দোলন যত জনপ্রিয় হতে থাকে, জার্মান রাজনীতিতেও পড়ে এর প্রভাব৷ অনেক রাজনীতিবিদ নিজেদের সমকামিতার কথা প্রকাশ্যে ঘোষণা দিতে থাকেন৷ ২০০১ সালের সিটি নির্বাচনে বার্লিনের এসপিডির মেয়র প্রার্থী ক্লাউস ভোভেরাইট দলের সম্মেলনে তার বক্তব্য শেষ করেন এই বলে, ‘‘আমি সমকামী এবং এটা খারাপ কিছু নয়৷’’ পরবর্তীতে ভোভেরাইট মেয়র নির্বাচিত হন এবং টানা ১০ বছর দায়িত্ব পালন করেন৷

সমকামিতা সাধারণ মানুষের চোখে ধীরে ধীরে সহনীয় করে তোলায় বড় ভূমিকা রেখেছেন রাজনীতিবিদরা৷ চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী গিডো ভেস্টারভেলে বিভিন্ন আনুষ্ঠানিক সফরে তার পার্টনার মিখায়েল ম্রোনৎসকে নিয়ে যেতেন৷ এখন এমনকি সমকামিতার বিরুদ্ধে কথা বলে এমন কট্টর ডানপন্থি দল এএফডির এক নেত্রী অ্যালিস ভাইডেলও এক নারীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন৷

জার্মানির বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েনস স্পান নিজেকে সমকামী ঘোষণা দেয়া প্রথম মন্ত্রী ৷ দলের অন্যতম উদীয়মান রাজনীতিবিদ বলে বিবেচনা করা হয় স্পানকে৷ করোনা মহামারিতে নিজের দেশকে দারুণভাবে সামাল দেয়ায় দল ও দেশ ছাড়াও আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি৷ ম্যার্কেলের পর সিডিইউয়ের প্রধান হওয়ার লড়াইয়েও অনেক এগিয়ে আছেন স্পান৷ জিতে গেলে তিনি হতে পারেন প্রথম সমকামী জার্মান চ্যান্সেলর৷

রাজনীতিবিদ তো বটেই, জার্মান জনগণের মধ্যেও ধীরে ধীরে সমকামীভীতি দূর হচ্ছে৷ কিন্তু এখনো অনেক ক্ষেত্রেই বৈষম্যের স্বীকার হন তারা৷ সম্প্রতি জার্মান ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিক রিসার্চ এবং বিলেফেল্ড ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় দেখা গেছে, নিজেদের এলজিবিটিকিউ ঘোষণা দেয়া ৩০ শতাংশ কর্মীই কর্মক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হন৷ জরিপে অংশ নেয়া এক তৃতীয়াংশই জানিয়েছেন, তারা সহকর্মীদের এ বিষয়ে জানাতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না৷

১৫ জুন হাঙ্গেরি সংসদে ১৫৭-১ ভোটে পাস হওয়া আইন অনুযায়ী, সমকামিতা বা দুইয়ের অধিক লিঙ্গ পরিচয়ে উদ্বুদ্ধ করে এমন তথ্য ছড়ানো যাবে না৷ মিউনিখ কাউন্সিল মনে করে, আইনটি লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সুয়াল ও ট্রান্সজেন্ডারদের অধিকারকে আরো হরণ করবে৷ এটিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের মৌলিক অধিকার সনদ, এলজিবিটিকিউ সমতা কৌশলপত্র ও জাতিসংঘের শিশু অধিকার কনভেনশন বিরোধী হিসেবে অভিহিত করেন৷ বলেন, এমন প্রেক্ষিতে ‘বৈচিত্র্য ও সহনশীল সমাজের পক্ষে’ মিউনিখের অবস্থান সবার সামনে তুলে ধরতে হাঙ্গেরির বিরুদ্ধে ম্যাচটি ভালো উপায়৷ ম্যাচ চলাকালে রংধনুর রঙে স্টেডিয়ামে আলো জ্বালাতে উয়েফার কাছে যাতে সুপারিশ করা হয় সে বিষয়ে মিউনিখ মেয়রের উদ্যোগ চেয়েছেন তারা৷

এই দাবিকে স্বাগত জানিয়েছে জার্মানি লেসবিয়ান ও গে অ্যাসোসিয়েশন-এলএসভিডি৷ সংগঠনটির জাতীয় বোর্ড সদস্য ক্রিস্টিয়ান রুডলফ বার্তা সংস্থা ডিপিএকে বলেছেন, শুধু একটি ম্যাচ নয়, গোটা ইউরো চলাকালেই উদ্যোগটি অব্যাহত থাকা উচিত৷ জার্মানির ফুটবল দলও এর পক্ষে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি৷ রুডলফ জার্মান ফুটবল ফেডারেশনে জেন্ডার সমতার বিষয়ে দায়িত্ব পালন করে আসছেন৷
জার্মানির ফুটবলে ‘এলজিবিটি+’ অধিকারের পক্ষে সংহতি প্রকাশ নতুন নয়৷ গত মঙ্গলবার ফ্রান্সের বিরুদ্ধে ম্যাচে জার্মানির অধিনায়ক মানুয়েল নয়ার রংধনু রঙের আর্মব্যান্ড পরে খেলেছেন৷ বুন্ডেসলিগা চলাকালে খেলোয়াড় আর দর্শকরাও এলজিবিটি+ আন্দোলনের সমর্থনে হরহামেশাই বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে থাকেন৷

- Advertisement -spot_img

More articles

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ আপডেট