20 C
Düsseldorf

রাজসিংহাসন নাকি বেদনার উত্তরাধিকার? কেন ছাড়লেন প্রিন্স হ্যারি?

Must read

গোলজার হোসাইন খান
গোলজার হোসাইন খান
আমি সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর একজন অবসরপ্রাপ্ত এসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার।অতি সাধারণ মানুষ। কোন উচ্চাভিলাষ নেই। সাংসারিক বোধবুদ্ধি শূন্যের কোঠায়। হেরে যাওয়া মানুষের পাশে থাকি।এড়িয়ে চলি স্বার্থপরতা।বিনম্র শ্রদ্ধায় নত হই সৃষ্টিশীল-পরিশ্রমী মানুষের প্রতি আর ভালবাসি আমার পেশাকে।

প্রিন্স হ্যারি তো প্রথম নন।দৃষ্টান্ত আরো আছে।

অষ্টম এডওয়ার্ড তখনো রাজা হননি। সুদর্শন এডওয়ার্ডের সঙ্গে পরিচয় হয় সুন্দরী ওয়ালিসের। প্রথম দেখায় এডওয়ার্ড প্রেমে মজলেও ওয়ালিস তখন দ্বিতীয় স্বামীর ঘর করছেন। সামাজিক বাধা-নিষেধ উপেক্ষা করে প্রেমে জড়ালেন দুজনই। কিন্তু এ সম্পর্ক মানতে নারাজ রাজপরিবার। সিংহাসনে বসলেও কথা রটেছে দেশ- বিদেশে। ওয়ালিসকে বিয়ে করলে ছাড়তে হবে সিংহাসন। রাজা করলেনও তাই। সব ছেড়ে ফ্রান্সে পালিয়ে থাকা ওয়ালিসের কাছে ছুটে গেলেন অষ্টম এডওয়ার্ড। প্রেমের ইতিহাসে স্থাপিত হলো এক অনন্য নজির।

কিন্তু কেন স্ত্রী, পুত্রকে নিয়ে ব্রিটেনের রাজপরিবার ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন রাজপুত্র হ্যারি? পারিবারিক অর্ন্তদ্বন্দ্ব নাকি অন্য কোনও কারণ? কখনও হ্যারির টুকরো টুকরো কথায় আবার কখনও ওপরা উইনফ্রের শোয়ে হ্যারি ও তাঁর স্ত্রী মেগান মর্কেলের দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে নানা কারণ ধীরে ধীরে প্রকাশ্যে এসেছে। মার্চে ওপরার শোয়ে মেগানের সেই সাক্ষাৎকারের পরে আর এক বার ফের মুখ খুললেন হ্যারি।

সম্প্রতি এক পডকাস্ট সাক্ষাৎকারে জানালেন, রাজপুত্র হয়ে উঠতে গিয়ে এক অদ্ভুত মানসিক যন্ত্রণার মধ্যে দিয়ে তাঁকে যেতে হয়েছে। একটা সময়ের পর হ্যারি বুঝেছেন, তাঁর বাবাও এই কষ্ট আর যন্ত্রণা সয়েই বড় হয়েছেন। কিন্তু যন্ত্রণা ও কষ্টের সেই ‘জেনেটিক উত্তরাধিকারের চক্র’ ভাঙতে সব ছেড়ে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত।

গত বছর জানুয়ারিতে রাজ পরিবারের দায়িত্ব ছেড়ে লস অ্যাঞ্জেলেসে সংসার পেতেছেন হ্যারি ও মেগান। সম্প্রতি ওপরার শোয়ে কৃষ্ণাঙ্গ মায়ের কন্যা মেগান বলেছিলেন, “আর্চির জন্মের আগে ছেলের গায়ের রং কতটা কালো হতে পারে, রাজপরিবারে তাঁর কানে এসেছিল সেই আলোচনাও।” প্রচণ্ড মানসিক চাপে এক সময় অসুস্থ হয়ে পড়ছিলেন তিনি। হ্যারি এ দিনের শোয়ে জানিয়েছেন, স্ত্রীর ওই অবস্থায় অবর্ণনীয় ভাবে অসহায় বোধ করেছিলেন তিনি। যুদ্ধদীর্ণ আফগানিস্তানে হেলিকপ্টারে চেপে যখন ঘুরছিলেন, তখন ঠিক এই রকম অসহায় মনে হয়েছিল নিজেকে। আর এক বার একই অভিজ্ঞতা হয়েছিল তাঁর। ছোটবেলায় মা ডায়ানার সঙ্গে গাড়িতে যাওয়ার সময়ে এক বার তাঁদের ধাওয়া করেছিল ছবি শিকারী পাপারাৎজিরা। তিনি জানিয়েছেন, রাজপুত্র হিসেবে নিজে যে কষ্ট অনুভব করেছেন, তাঁর সন্তানেরা যাতে সেই যন্ত্রণার আঁচ না পায়, সেই কারণেই ব্রিটেন ছেড়ে আসার সিদ্ধান্ত।হ্যারির ভাষায়,”দুঃখের উত্তরাধিকার থেকে মুুক্তি “।

- Advertisement -spot_img

More articles

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ আপডেট