20 C
Düsseldorf

ভাপ ওঠা ভাতের গন্ধ

Must read

গোলজার হোসাইন খান
গোলজার হোসাইন খান
আমি সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর একজন অবসরপ্রাপ্ত এসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার।অতি সাধারণ মানুষ। কোন উচ্চাভিলাষ নেই। সাংসারিক বোধবুদ্ধি শূন্যের কোঠায়। হেরে যাওয়া মানুষের পাশে থাকি।এড়িয়ে চলি স্বার্থপরতা।বিনম্র শ্রদ্ধায় নত হই সৃষ্টিশীল-পরিশ্রমী মানুষের প্রতি আর ভালবাসি আমার পেশাকে।

ধান কাটার মৌসুম চলছে।কাজ কাম’ও নাই।সরকারি চাকুরির সর্বোচ্চ সুবিধা পেনশন খেতে খেতে গায়ে গতরে চর্বি জমে যাচ্ছে। হঠাৎ মনে হলো যদি এখন মণ দশেক ধান কিনে সিদ্ধ করে চাল বানিয়ে রাখি তবে সারা বছর আর চাল কিনতে হবে না।

প্রস্তাব শুনে ছেলে ভর্ৎসনা করে বললো

– চলমান বৈশ্বিক করোনা মহামারী থেকে সারভাইভ করার ন্যূনতম নিশ্চয়তা কেউ দিতে পারছে না। মানুষ জীবনকে আটকে রেখেছে ঘরে। আর এই কালবেলায় এক বছরের খাওয়ার চিন্তা কেউ করে?

একটু লজ্জা পেয়ে এদিক-ওদিক তাকাতে লাগলাম।তাইতো।বাপ-মা গত হওয়ার পর আমি না এখন ঝকঝকে চাল বাজার থেকে কিনে আনি।ঝাড়া-বাছারও ঝামেলা নাই।রাইস কুকারে আটকে টাইম ফিক্স করে সুইস অন করলেই ল্যাঠা চুকে গেল।এত ঝামেলার দরকার কি!

কিন্তু আমার চাকুরী জীবনে যেখানে যতদূরই গেছি মায়ের হাতের সিদ্ধ মোটা চাল ঠিক পৌঁছে যেতো। সেই ভাপ ওঠা গরম ভাত একটু লবন দিয়ে মাখলেই একটা আঠালো স্বাদ মায়ের অনূভুতিকেই ফিরিয়ে আনতো।
প্রক্রিয়াটাও অনেক কষ্টকর।ধামায় করে ধান এনে ভিজিয়ে রেখে পরদিন ভোর রাত থেকে সিদ্ধ-শুকানো,সে যেন এক উৎসবের আমেজ।

আমাদের ছেলেমেয়েরা বাবাদিবস-মা দিবসে কত আবেগময় কথায় তাদের স্মরন করে।আমি কিছুই পারিনা।আমরা তো অত আদর যত্নে বড় হইনি।একগাদা ছেলেমেয়ের ক্ষিধে মেটানোর চিন্তাতেই তাদের ঘুম হতো না।আদরের আদিখ্যেতার সময় কই।

ছেলেকে বলতে চাইলাম,অযত্ন অবহেলার বাপ-মা’র ঘামের গন্ধর মত সিদ্ধ ধানের ভাপ ওঠা নেশা লাগা ঘ্রাণটা আরেকবার পেতে চাই।

গলার কাছে কি একটা আটকে গেল আর বলা হলো না।

- Advertisement -spot_img

More articles

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ আপডেট