7.7 C
Düsseldorf

একটি পত্রের খসড়া

Must read

গোলজার হোসাইন খান
গোলজার হোসাইন খান
আমি সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর একজন অবসরপ্রাপ্ত এসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার।অতি সাধারণ মানুষ। কোন উচ্চাভিলাষ নেই। সাংসারিক বোধবুদ্ধি শূন্যের কোঠায়। হেরে যাওয়া মানুষের পাশে থাকি।এড়িয়ে চলি স্বার্থপরতা।বিনম্র শ্রদ্ধায় নত হই সৃষ্টিশীল-পরিশ্রমী মানুষের প্রতি আর ভালবাসি আমার পেশাকে।

বাবা,
বিশ্বাস করো-তোমার অনুমিত ধারণায়
যতোটা অপদার্থ ভেবেছিলে-
আমি অতটা মন্দ ছিলাম না।
অনিশ্চিত আগামীর আতংকে –
আমার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় তোমার মত
কষ্ট কম পাইনি আমিও।
পান্তার পানিতে কতদিন মিশে গেছে নোনাজল –
কাউকে বুঝতে দেইনি।
ঘরে ভাতের খোঁটা – বাইরে শিক্ষার অপবাদ,
জীবনটা দুঃসহ হয়ে উঠেছিল বাবা।
তাই কিছু টাকা চেয়েছিলাম –
নিজের মত করে বাঁচবো বলে।
তুমি বিশ্বাস করোনি।
তোমারই বা দোষ কি।
শিক্ষার মতো আর কোন অর্থ জলে ফেলতে চাওনি।
তোমার-আমার আস্থার সংকটে-
মিথ্যে আশার আলো জ্বালিয়ে দিল
মানুষ রূপি এক আদমের ব্যাপারী।
বিলাসী জীবনের স্বপ্নে –
জমিজিরাত, গরুছাগল –
এমনকি মায়ের নাক ফুলটাও বেচে দিয়ে
তুমি সর্বস্ব তুলে দিলে তার হাতে।
তুমি বুঝতে পারনি বাবা
একইসাথে তুলে দিয়েছিলে আমার প্রানটাও।
তাই যখন লিবিয়ার শুষ্ক মরু
ভিজে যায় আমার তাজা রক্তে-
ভূমধ্যসাগরে ভেসে যায় আমার লাশ-
কিংবা আমার কংকাল উঠে আসে –
থাইল্যান্ডের গহীন অরন্যে-
তুমি কান পেতে শুনো বাবা,
শেষবারের মতো আমি তোমাকেই ডেকেছিলাম।
শান্তনা একটাই-
আর কিছুই চাইবো না কোনদিন।
তোমার এ-ই নষ্ট ছেলের দাফনের জন্য –
আর নষ্ট হয়নি তোমার এক টুকরো জমিন।
ভালো থেকো বাবা
আর
পারলে ক্ষমা করো।

- Advertisement -spot_img

More articles

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ আপডেট