20 C
Düsseldorf

আমি অসুস্থ,অপরাধী নই।একজন করোনা জয়ীর দিনলিপি

Must read

গোলজার হোসাইন খান
গোলজার হোসাইন খান
আমি সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর একজন অবসরপ্রাপ্ত এসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার।অতি সাধারণ মানুষ। কোন উচ্চাভিলাষ নেই। সাংসারিক বোধবুদ্ধি শূন্যের কোঠায়। হেরে যাওয়া মানুষের পাশে থাকি।এড়িয়ে চলি স্বার্থপরতা।বিনম্র শ্রদ্ধায় নত হই সৃষ্টিশীল-পরিশ্রমী মানুষের প্রতি আর ভালবাসি আমার পেশাকে।

হ্যাঁ, আমিই চন্দনা। কোভিড পজিটিভ। নিজেকে একটি ঘরে সীমাবদ্ধ করে রেখেছি। অর্থাৎ সেলফ আইসোলেটেড। সঙ্গে সঙ্গে স্টিম নেওয়া, গরম পানি খাওয়া। দিন দশেক আগে সন্ধ্যেবেলায় গলায় একটা অস্বস্তি এবং খুক্খুকে কাশি দিয়ে শুরু। তখনও আমি এবং আশেপাশের মানুষগুলো জানেন, আমি সুস্থ। ঘুম ভাঙলো ১০৩ জ্বর নিয়ে। সঙ্গে মাথা, ঘাড়, কোমরে অসহ্য যন্ত্রণা। ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানকে ফোন করতে ওইপ্রান্ত থেকে উত্তর এল, ‘প্যারাসিটামল খান, তিনদিন পর কোভিড টেস্ট করান।’ আরও এক বিশেষজ্ঞের মতামত নিই এবং সঙ্গে সঙ্গে কোভিড টেস্ট করাই। জানতে পারি আমি পজিটিভ।
আসল লড়াই শুরু হয় এবার।

যে মুহুর্তে টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ আসে, অজানা ভয় যেন গ্রাস করে নেয়। ‘তাহলে কি আমাকে হাসপাতালে থাকতে হবে?’ স্বামী দূর থেকে বলে ওঠেন, ‘যা হবার হয়েছে, কাউকে বলা যাবে না। সোসাইটি জানতে পারলে হাসপাতাল বা কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে যেতে বাধ্য করবে।’ কাজের লোককে ছুটি দেওয়াতে খুব সন্দেহের চোখে উত্তর দেয়, ‘ও মাগো, কি হবে? আমি কিন্তু একমাস আসবো না।’ এখানেই শেষ নয়, ওষুধের দোকানে ফোন করে ওষুধ চাইতে গেলে তারা কোভিডের ওষুধ বিল্ডিং সিকিউরিটির কাছে রেখে যাবে না, শুনতে হয়। হোম ডেলিভারি অর্ডার দেওয়ায়, সিকিউরিটি গার্ড বলে দেয়, ‘আপনার ফ্ল্যাটে আমরা খাবার পৌঁছে দেব না।’ কোভিডের থেকেও বড় লড়াই বোধ হয় এগুলি!
কিন্তু আমার প্রশ্ন অন্য। আমি তো অসুস্থ, অপরাধী তো নই। তাহলে আমাকে ঘিরে এই ভয় বা আতঙ্ক কেন? মাস্ক, স্যানিটাইজার, সামাজিক দূরত্ব এবং সুষম খাদ্যের মাধ্যমে কোভিডকে মোকাবিলা যে করতে পারি, এগুলি গত এক বছর ধরে আমরা শিখেছি, সচেতনও হয়েছি। আবার এও জানি, কোভিড এমন একটি অসুখ যা সংক্রামক এবং চিকিৎসায় দেরি হলে প্রাণঘাতী হতে পারে। তবে কেন কোনও ডাক্তার অবলীলায় বলেন, ‘প্যারাসিটামল খান, তিন দিন পর টেস্ট করান?’ উনি কি জানতেন না, তিনদিনে এই রোগ ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে? কেন মানুষের মনে এই সহজ কথাটি সহজভাবে বোঝানো হচ্ছে না যে, শুধু কোভিড নয়, যে কোনো রোগনির্ণয়েই দেরি হলে তা প্রাণঘাতী হতে পারে। এমনকী সাধারণ ফ্লু, সেটিও কিন্তু সংক্রমিত একটি ভাইরাস। চিকিৎসার দেরি হলে সেটিও হতে পারে প্রাণঘাতী। কেন সমাজের এই অদ্ভূত আচরণ? একজন কোভিড রোগী যদি সামাজিক সহায়তার অভাবে, লজ্জায় জ্বরের ওষুধ খেয়ে ধামাচাপা দিয়ে আরও চারটি মানুষের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ান, তাহলে তো ক্ষতিটা অনেক বেশি, তাই না? কোভিড নিয়ে আতঙ্ক, অভিমান, লজ্জা, কোনটাই নয়, ভ্যাকসিন, সঠিক সময়ে টেস্ট এবং যথাযথ ওষুধের মাধ্যমে আমরা প্রতিটি মানুষ হয়ে উঠতে পারি প্রকৃত কোভিড যোদ্ধা।

- Advertisement -spot_img

More articles

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ আপডেট